বিএনপি ক্ষমতায় গেলে প্রধানমন্ত্রী কে হবেন

মির্জা ফকরুল ইসলাম

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হওয়ার পর দেখা যাবে বিএনপির নেতৃত্বে কে আসে। ক্ষমতায় গেলে বেগম জিয়া হবেন প্রধানমন্ত্রী, তার অনুপস্থিতে তারেক রহমান হবেন প্রধানমন্ত্রী।

বুধবার (২২ জুন) রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপরসনের কার্যালয়ে সমসাময়কি ইস্যু নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

এ সময় তারেক রহমান রাজনৈতিক আশ্রয়ে লন্ডনে আছেন জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব অভিযোগ করেন, তার (তারেক রহমান) পাসপোর্ট ইস্যুও করতে দিচ্ছে না সরকার।

-জীবন আর্ট এন্ড ডিজিটাল সাইন

মির্জা ফখরুল আরও বলেন, ৫.৫৮ কিলোমিটারের পদ্মা সেতু তৈরিতে ২০০৪ সালের ৩ মার্চ মাওয়া-জাজিরা প্রান্তে সমীক্ষার কাজ শুরু করেছিল বিএনপি সরকার। ব্যয় ধরা হয়েছিল ৮ হাজার ৫৮৭ কোটি টাকা। এরপরও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কীভাবে বলেন, বিএনপি সরকার এসে কাজ বন্ধ করে দিয়েছিল!

পড়ুনঃ-  অনুদান বন্ধ করতে দুই বছর আগে বিএনপির চিঠি

তিনি বলেন, সমস্যা এখানে না, বিশ্বব্যাংক ফান্ড বন্ধ করার পর সমস্যা তৈরি হলো। বিএনপি ও ড. ইউনূসকে দোষারোপ করছে তার কোনো প্রমাণ নেই। সত্যের অপলাপ করছেন প্রধানমন্ত্রী, বিএনপিকে হেয় করতে অসত্য বক্তব্য দিচ্ছেন শেখ হাসিনা।

বিএনপি মহাসচিব আরও বলেন, যারা মানুষকে হত্যা করবে, বেগম জিয়াকে কারারুদ্ধ করে ড. ইউনূসকে ডুবিয়ে হত্যা করতে চায় তাদের দাওয়াতে বিএনপি কিংবা তাদের কর্মীরা যাবে না।

পড়ুনঃ-  ইসি গঠনে রাজনৈতিক দল থেকে মতামত নেওয়া হবে: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

এ সময় বন্যা মোকাবিলায় সরকার ব্যর্থ হয়েছে বলে মন্তব্য করেন মির্জা ফখরুল। বিএনপির দিকে না তাকিয়ে নিজেরা কতটা ত্রাণ সহায়তা দিয়েছে তা খেয়াল করতে ক্ষমতাসীনদের আহ্বান জানান বিএনপি মহাসচিব। ক্ষমতাসীনদের পদত্যাগও দাবি করেন এ বিএনপি নেতা।

তিনি বলেন, বন্য মোকাবিলা ও ত্রাণ সহায়তা দিতে ব্যর্থতার দায় নিয়ে সরকারের ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়ানো উচিত। সংবাদ সম্মেলনে সুইস ব্যাংকে টাকা জমা করার ঘটনায় পাচারকারিদের তথ্য প্রকাশের দাবি জানান ফখরুল।

দৈনিক চারঘাট ইউটিউব চ্যানেলে SUBSCRIBE করুন।

পড়ুনঃ-  বিএনপি ও আওয়ামী লীগের গ্যাঁড়াকল