প্রধান নির্বাচন কমিশনারের মিথ্যাচারে স্তম্ভিত সুজন সম্পাদক

প্রধান নির্বাচন কমিশনারের মিথ্যাচারে স্তম্ভিত সুজন সম্পাদক

যৌক্তিক সমালোচনার যুৎসই জবাব না থাকলে সমালোচনাকারীর চরিত্র হননের অপচেষ্টায় লিপ্ত হওয়া বহুল ব্যবহৃত একটি অপকৌশলে লিপ্ত হয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা। এমনটি মনে করছে সুজন সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার ।

শনিবার (২৯ জানুয়ারি) সুজনের ফেসবুক পেজে একটি ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, সিইসি নূরুল হুদার মিথ্যাচারে আমরা স্তম্ভিত।

এতে যুক্ত হয়ে আইন বিশেষজ্ঞ শাহদীন মালিক বলেন, নির্বাচনকে নির্বাসনে পাঠানোর জন্য আজ হোক কাল হোক কে এম নূরুল হুদাকে বিচারের মুখোমুখি দাঁড়াতে হবে।

পড়ুনঃ-  ইসি গঠনে রাজনৈতিক দল থেকে মতামত নেওয়া হবে: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ ড. তোফায়েল আহমেদ বলেন, সিইসি অন্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে নিজেদের অপকর্ম ঢাকার চেষ্টা করছেন।

এছাড়া সাবেক বিচারপতি এম এ মতিন সংবাদ সম্মেলনে যুক্ত হয়ে বলেন, নূরুল হুদা কোনো যাচাই-বাছাই ছাড়াই সুজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছেন। তিনি বস্তির লোকের মত কথা বলেছেন। জাতীয় স্বার্থেই এর বিচার হওয়া উচিত।

পড়ুনঃ-  ইসি গঠনে আ. লীগ দিল ১০ জনের তালিকা

মানহানির কোনো মামলা করবেন কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে সুজন সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেন, সিইসির যে বক্তব্য তা মিথ্যা ও বানোয়াট। তিনি ভেবে সিদ্ধান্ত নেবেন।

গত পাঁচ বছর ধরে রাষ্ট্রের অতি গুরুত্বপূর্ণ সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান নির্বাচন কমিশনের পরিচালন ভার নূরুল হুদা কমিশন ছাড়তে যাচ্ছে আসছে ১৪ ফেব্রুয়ারি।

পড়ুনঃ-  বৃহত্তর জোট করে আন্দোলনে যেতে চায় বিএনপি

গত ২৭ জানুয়ারি এক সংবাদ সম্মেলনে সিইসি নূরুল হুদা ১ কোটি টাকার আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ করে বলেন, নির্বাচন কমিশনে কাজ না পাওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে সুশাসনের জন্য নাগরিক নামে সংগঠন ‘সুজন’ কমিশনের সমালোচনা করে আসছে।

কমিশন থেকে সুবিধা নিতে দুই বছর বদিউল আলম মজুমদার কে এম নূরুল হুদার পেছনে ঘুর ঘুর করেছে বলেও অভিযোগ আনেন নূরুল হুদা।